ধামরাইয়ে সাংবাদিকের ওপর হামলা ও গাড়ি ভাঙচুর অভিযোগে আটক দুই।

0
16

 

মোঃ সিরাজুল ইসলাম ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি!! ঢাকার ধামরাইয়ে মৎস্য খামার নিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন সাংবাদিকরা। এবং গাড়ি ভাঙচুর ও গাড়ির ভেতরে থাকা নগদ এক লাখ টাকা, একটি ল্যাপটপ ও একটি ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে।

সোমবার (১৪ নভেম্বর) বিকেলে আশুলিয়ার নয়ারহাট থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। আটককৃতরা হলেন ফারুক হোসেন (৩১), মজিবুর রহমান (৪৬) উভয়ই কুশুরা ইউনিয়নের পাড়াগ্রাম এলাকার বাসিন্দা।

উল্লেখ্য গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে ধামরাই উপজেলা প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক মাসুদ রানা সাদা রং এর প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্টো গ-১৪-৮৩৯৭) ভাড়া করে ক্যামেরাপার্সন সোহেলকে (৩০) নিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করতে যায়। সংবাদ সংগ্রহের জন্য ধামরাই উপজেলার পাড়াগ্রাম পূর্ব পাড়া আলাল বিএসসি’র বাড়ির সামনে পাকা রাস্তায় পৌঁছালে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে রামদা, চাপাতী ও হকিস্টিক সহ দেশীয় মারাত্মক অস্ত্রসহ গাড়ির গতিরোধ করে অতর্কিত হামলা করে। এসময় গাড়ির গ্লাস ভাঙচুর করে
দুর্বৃত্তরা। এঘটনায় ভুক্তভোগী সাংবাদিক মাসুদ রানা বলেন, আমরা ‘দুই সাংবাদিক সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়েছিলাম। এ সময় দুর্বৃত্ত ও সন্ত্রাসীরা হঠাৎ করে আমাদের ওপর হামলা চালায়। হামলার সময় তারা ল্যাপটপ, ক্যামেরা ও ব্যাকপ্যাক ছিনতাই এবং গাড়ি ভাঙচুর করেছে। এসময় প্রতিবাদ করলে সন্ত্রাসীরা আমাকেসহ ক্যামেরাম্যান সোহেল ও ড্রাইভার মানিক দেরকে এলোপাথারীভাবে মারপিট করে শরীরের বিভন্ন স্থানে জখম করে। এক পর্যায়ে ফারুক আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গলা চেপে শ্বাস রোধ করার চেষ্টা করে। তখন মজিবুরসহ অন্যান্যরা আমার গাড়ির ভেতরে থাকা মটরসাইকেল ক্রয় করার জন্য রাখা নগদ এক লাখ টাকাসহ একটি এসআর ল্যাপটপ এবং একটি ডিজিটাল ক্যামেরা নিয়ে যায়। আমার ডাক চিৎকার শুনে আশে পাশের লোকজন এগিয়ে আসে। আমাদেরকে এলাকায় পুনরায় দেখলে আমাকে হত্যা করার হুমকী দিয়ে চলে যায় আসামিরা।

এ বিষয়ে ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুর রহমান বলেন, গাড়ি ভাঙচুর ও সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় আসামি ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।তাদের আগামীকাল আদালতে প্রেরন করা হবে।এবং বাকি আসামীদের গ্রেফতার এর শ্রেষ্টা চলছে।