ধামরাইয়ে চকলেটের লোভ দেখিয়ে ৮ বছরের শিশুকে ধর্ষণ।

0
52

 

মোঃ সিরাজুল ইসলাম ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি!! ঢাকার ধামরাইয়ে চকলেটের লোভ দেখিয়ে ৮বছরের এক শিশুকে ধর্ষণ করেছে রতন কুমার সাহা (৫৫) নামে এক কাচামাল ব্যবসায়ী।

শনিবার (১৫অক্টোবর) সকালে গুরুতর আহত অবস্থায় শিশুটিকে সাভারে একটি মেডিকেল ভর্তি করা হয়।এর আগে শুক্রবার বিকাল বেলা চকলেটের লোভ দেখিয়ে পাটক্ষেতে নিয়ে শিশুকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের পরে মেয়েটি প্রস্রাব করতে পারে না, এবং সাথে ব্লাড আসতে দেখে। পরে দ্রুত সাভার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ।

ধর্ষককারী রতন সাহা ধামরাই উপজেলার নান্নার ইউনিয়নের নান্নার দক্ষিণ পাড়া গ্রামের মৃত শিয়া সাহার ছেলে।

ভুক্তভোগীর পরিবার ও শিশুটির মা বলেন গত শুক্রবার আমার ৮ বছরের মেয়েকে বাড়ির পাশে থেকে ফুসলিয়ে চকলেটের লোভ দেখিয়ে বাড়ী থেকে একটু দুরেই পাটক্ষেতে নিয়ে রতন সাহা ধর্ষণ করে। পরে রাতেই তার শরীরের অবস্থা খারাপ হয়ে পেট ফুলে এবং রক্তক্ষরণ হয়। পড়ে মেয়েকে জিজ্ঞেস করলে সে ঘটনার কথা সব খুলে বলে। পরে এই বিষয়ে নান্নার ইউনিয়নের ৫ নং ওযার্ডের মেম্বার মোঃ নরুল ইসলাম ঠান্ডু, ও মহিলা মেম্বার রওশনারা কে বিষয় টা খুলে বলি, এবং মহিলা মেম্বার মেয়েকে চেক করে গুরুতর অবস্থা দেখে তারাতাড়ি মেডিকেল ভর্তি করতে বলে। পরে ঠান্ডু মেম্বার ধর্ষককারীর কাছ থেকে পাচঁ হাজার টাকা দিয়ে মেয়েকে হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দেন।

শিশুটির মা সীমা বেগম আরও বলেন, আমার মেয়েকে রতন সাহা যা করেছে তা বলতে পারছি না। আমি মেয়েকে নিয়ে সাভার হাসপাতালে ভর্তি আছি। তবে মেম্বার মোঃ নুরুল ইসলাম ঠান্ডু বলেছে তোমরা মেয়েটিকে সুস্থ্য করে বাড়ীতে আস আমরা এক জায়গায় বসে মিমাংসা করে দিব। ভাই আমার স্বামী আইক্রীম বিক্রি করে সংসার চালায়। আমরা গরীব মানুষ আমাদের বিচার কে করবে।

এই বিষয়ে শিশুটির বড় চাচা মোঃ রজ্জব ফকির বলেন, ঠান্ডু মেম্বার মিমাংসার ভার নিয়ে শিশুটিকে চিকিৎসার জন্য রতন কুমারকে টাকা দিতে বলেছে।

এই বিষয়ে মেম্বার মোঃ নরুল ইসলাম ঠান্ডু বলেন, আমি ধর্ষণের ঘটনায় ৮ বছরের শিশু গুরুতর আহত হওয়ায়। আমি পাচঁ হাজার টাকা দিয়ে শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করার কথা বলেছি।

এই বিষয়ে ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ আতিকুর রহমান বলেন, ধর্ষণের বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। ধর্ষণকারীকে আটকের শ্রেষ্টা চলছে।