ধামরাইয়ে সামিনা হত্যা মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী ১৭বছর পর চাদঁপুর থেকে গ্রেফতার ২।

0
41

 

মোঃ সিরাজুল ইসলাম ধামরাই ( ঢাকা) প্রতিনিধি” ধামরাইয়ে চাঞ্চল্যকর নির্মমভাবে আগুনে পুড়িয়ে গৃহবধু সামিনাকে হত্যা মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী মোঃ আব্দুর রহিম(৬৪) এবং তার স্ত্রী রোকেয়া(৫০) দীর্ঘ ১৭বছর পর চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ থানার নারায়নপুর গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ এর একটি অভিযানিক দল। গতকাল সোমবার (২২আগষ্ট) দিনগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ থানার নারায়নপুর গ্রামের একটি ভাড়া বাড়ী থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।মোঃ আব্দুর রহিম সাটুরিয়া থানার উত্তর কাওননারা গ্রামের বাসিন্দা। রোকেয়া আব্দুর রহিমের স্ত্রী। র‌্যাব সুত্রে জানাযায়, ২০০৩সালে জাফরের সাথে সামিনার বিয়ে হয়। সামিনার মা-বাবা সাধ্য অনুযায়ী নগদ টাকা পয়সা ও আসবাসপত্র সামগ্রী প্রদান করে।এরপর থেকে সামিনাকে বিভিন্ন সময় তার বাপের কাছ থেকে যৌতুক চেয়ে নির্যাতন করে আসছে স্বামীর পরিবার। কিন্তু সামিনার বাবা দরিদ্র হওয়ায় তারা টাকা না দেওয়ায় স্বামী জাফর, রোকেয়া, রোকেয়ার স্বামী আব্দুর রহিম এর উপস্থিতে সামিনার স্বামী জাফর মারধরের এক পর্যায়ে ঘরের ভিতরে সামিনার দেহে দাহ্য জাতীয় পদার্থ ঢেলে আগুন ধরিয়ে বাহির থেকে দরজা বন্ধ করে দেয়।

পরে সামিনার ডাকচিৎকারে আশে পাশের লোকজন ছুটে এসে আশস্কাজনক অবস্থায় সামিনাকে উদ্ধার করে গণস্বাস্থ্য হাসপাতলে ভর্তি করেন। সেখানে সামিনার অবস্থার অবনতি হলে পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে প্রেরণ করেন। এরপর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০০৫ সালে ১০জুন সামিনা মৃত্যু ররণ করে। পরে সামিনার মা নাজমা বেগম বাদী হয়ে জাফরকে প্রধান আসামী করে জাফরের বড় ভাই জাহাঙ্গীর, সালেক, জাফরের বোন রোকেয়া বেগম ও তার স্বামী আব্দুর রহিম, মামা ফেলানিয়াসহ ৬জনকে আসামী করে ধামরাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।যার মামলা নং ৭(৬)০৫। এরপর ৩১ শে আগষ্ট ২০০৫ সালে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রফিকুল ইসলাম তদন্ত শেষে এজাহারনামীয় সকল আসামীদের অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগ দাখিল করে। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল সমস্ত সাক্ষ্য প্রমান নিয়ে ছয়জনকে মুত্যুদন্ড ও ১০হাজার করে টাকা অর্থদন্ডের আদেশ প্রদান করেন। এর আগে জাফরের বড় ভাই জাহাঙ্গীর ব্যাতিত সকল আসামী গ্রেফতার হয়। সেখানে সবায় কারাভোগ করে জামিনে আসে। এদের মধ্যে আব্দুর রহিম ১১মাস ও তার স্ত্রী রোকেয়া ১৭মাস কারাভোগ করে জামিনে মুক্তি পেয়ে আত্মগোপনে চলে যায়। এই বিষয়ে র‌্যাব ৪ এর কোম্পানী কমান্ডার লেফটেন্যান্ট মোঃ রাকিব মাহমুদ খান বলেন, র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে গতকাল সোমবার দিনগত রাতে চাঞ্চল্যকর নির্মমভাবে আগুনে পুড়িয়ে গৃহবধু সামিনাকে হত্যা মামলার মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পলাতক আসামী মোঃ আব্দুর রহিম(৬৪) এবং তার স্ত্রী রোকেয়া(৫০) দীর্ঘ ১৭বছর পর চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণ থানার নারায়নপুর গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে।তাদেরকে সংশ্লিট থানায় হস্তান্তর করা হবে। অদূর ভবিষ্যতে এইরুপ অপরাধীদের বিরুদ্ধে র‌্যাব-৪ এর অভিযান অব্যাহত থাকবে।