আশুলিয়ায় বস্তা বন্দি অবস্থায় অর্ধগলিত যুবকের লাশ উদ্ধার।

0
89

মোঃসোহান আহমেদ সানাউল

বিষেশ প্রতিনিধিঃ

আশুলিয়ার জিরাবো এলাকা থেকে বস্তা বন্ধি অবস্থায় নুর বিশ্বাস (২৮)এর অর্ধ গলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।ধারনা করা হচ্ছে কথিত স্ত্রী বটি দিয়ে জবাই করে বস্তায় ভরে রেখে পালিয়ে গেছেন।

মাগুরা জেলা শ্রীপুর থানা হোগলডাঙ্গা গ্রামের বাহাদুর বিশ্বাসের ছেলে নিহত নুর বিশ্বাস (২৮)। তিনি জিরাবো এলাকায় অটোরিকশা চালাতেন বলে জানাগেছে। এঘটনায় নিহতের কথিত স্ত্রীর নাম পরিচয় এখনো পাওয়া যায় নি।

সোমবার (০১ আগস্ট) সন্ধা ৬ টার দিকে জিরাবো এলাকার দেলোয়ারের বাড়ি থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।পুলিশের ধারণা প্রায় দুই থেকে তিন দিন আগে তাকে হত্যা করা হয়েছে।

নিহতের বোনের জামাই জাকির হোসেন সাংবাদিকদের বলেন,গত ১৪ জুলাই পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় নূর বিশ্বাসের। বিয়ের তিন দিন পর তার স্ত্রীকে গ্রামে রেখে ঢাকায় আসে নূর। গত রবিবার ৩১ জুলাই নূরের মোবাইল ফোন থেকে এক নারী আমাকে কল দিয়ে বলেন নূর বিশ্বাসকে একটি ঘরে আটকে রাখা হয়েছে। আপনারা এসে নিয়ে যান। আমরা গ্রাম থেকে জিরাবোর উদ্দেশ্য রওনা হয়ে আজ বিকেলে পৌঁছে নূর বিশ্বাসের মরদেহ দেখতে পাই। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে।

বাড়ির মালিক দেলোয়ার হোসেন বেপারী সাংবাদিকদের বলেন, গত বৃহস্পতিবার নিহত নুর হোসেন ও তার কথিত স্ত্রী স্বামি-স্ত্রী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নেয়। শুক্রবার ঘর ধোয়ামোছা করে বাড়িতে ওঠে তারা। শনিবারও তাকে রিকশা চালাতে দেখেছি।

পুলিশ জানায়, স্থানীয়দের খবরের ভিত্তিতে ওই এলাকার হাজ্বী দেলোয়ার হোসেন বেপারীর ভাড়া বাড়ির একটি কক্ষ থেকে অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তাকে বটি দিয়ে জবাই করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারাণা করা হচ্ছে নিহতের কথিত স্ত্রী তাকে হত্যা করে পালিয়েছে।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইউনুস আলী বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। একই সাথে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত রক্তমাখা বটি জব্দ করা হয়েছে। নিহতের কথিত স্ত্রীর পরিচয় শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনার চেষ্টা চলছে।