চিকিৎসকের ভুলে ২২ বছর শিকলে বন্ধী কালীগঞ্জের হাসান।

0
4
আব্দুস সালাম (জয়)
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার জামাল ইউনিয়নের নাকোবাড়িয়া গ্রামে ভুল চিকিৎসায় মানষিক প্রতিবন্ধী হাসানের থমকে আছে হাসান মিয়ার জীবন। ধুলা, বালি মাখা শরীর, পায়ে লোহার শিকল। শুধু তাকিয়ে থাকে মায়াবি চোখ দিয়ে। মানষিক প্রতিবন্ধী হাসানের উন্নত চিকিৎসা করাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছে পরিবারটি।
শিশুকাল থেকে শুরু করে শৈশব, কৈশর, জীবন যৌবনের প্রায় ২২ টি বছর কেটে যাচ্ছে শিকল বন্ধী অবস্থায়। পরিবারের দাবি একটি ভুল চিকিৎসায় এমনটি হয়েছে তার। তবে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে আর কোন চিকিৎসা মেলেনি। গ্রামের একটি মেঠো রাস্তা দিয়ে চলার পথে প্রতিবেদকের চোখে পড়ে এমন দৃশ্য।
হাসানের মা শুকুরন নেছা বলেন, আমি মা হয়ে সন্তানের এমন দৃশ্য কিভাবে সহ্য করবো বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তিনি বলেন খাবার দিলে খাই, না দিলে খাই না। কথা জ্ঞান নেই তার। রাতে ঘরের বারান্দায় শিকল বন্দী এবং দিনে রাস্তার পাশে জাম গাছেই তার কেটে গেল প্রায় ২ যুগ। নিউমনিয়া রোগ জনিত কারণে ৩ বছর বয়সে ২ বছর ধরে ডাক্তার অলোক কুমার সাহার কাছে হাসানের দেখানো হয়। সমস্যার কথা বললে ডাক্তার বলেন ভালো হয়ে যাবে কিন্তু তিনি ভুল চিকিৎসা দেওয়ায় এমনটি হয়েছিল বলে পরবর্তীতে অন্য ডাক্তারের কাছে গেলে জানা যায়।
হাসানের পিতা রিজাউল ইসলাম বলেন, ছেলে হাসানের নিয়ে আমার অনেক আশা ছিল, কিন্তু ঝিনাইদহের ডাক্তার অলোক কুমার সাহার ভুল চিকিৎসায় সব আশা ভঙ্গ হয়ে গেছে। ডাক্তারের কাছে পরবর্তীতে গেলে তাড়িয়ে বের করে দিতেন। দেশের বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসার জন্য গিয়েছি। এখন আমি সর্বশান্ত। সরকারের পক্ষ থেকে কোন সহযোগিতা পেলে আমার ভালো হয়। তবে আমার ছেলের ডাক্তার আর কোন খোঁজ রাখেননি।
এ ঘটনায় ডাক্তারের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি।
এব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলার জামাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোদাচ্ছের হোসেন মন্ডল বলেন, গত বছর একটি প্রতিবন্ধী কার্ড পেয়েছে হাসান। তাদের পরিবার খুবই কষ্টের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here