বরগুনায় ধর্ষণের পরে হত্যা মামলার আসামী আটক।

0
25
মোঃ অপু মিয়া
 বরগুনা জেলা প্রতিনিধিঃ 
বরগুনা সদর উপজেলায় ৩য় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে নাইমুর রহমান নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে।
এর আগেও পাষণ্ড নাইমুরের বিরুদ্ধে ৫ বছরের এক কন্যা শিশুকে ধর্ষণের পরে হত্যার অভিযোগে একটি মামলাও রয়েছে। এলাকাবাসীর সহায়তায় অভিযুক্ত পাষণ্ড নাইমুরকে আটক করেছে বরগুনা থানা পুলিশ।
শনিবার (৯ অক্টোবর) দুপুর দেড়টার দিকে বরগুনা সদর উপজেলার ৫নং আয়লা পাতাঘাটা ইউনিয়নের তুলাতলা ইটবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাথরুমে ভুক্তভোগী ঐ স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে নাইমুর। অভিযুক্ত নাইমুর সদর উপজেলার ৪নং কেওড়াবুনিয়া ইউনিয়নের জব্বার মিয়ার ছেলে।
ভুক্তভোগী স্কুল ছাত্রীর পিতা বলেন, শনিবার (৯ অক্টোবর) দুপুর ১ টার দিকে আমার মেয়ে গোসল করার জন্য পুকুরে যাওয়ার সময় আগে থেকেই ওঁৎ পেতে থাকা বখাটে নাঈমুর রহমান আমার মেয়েকে পাশের একটি স্কুলের বাথরুমে নিয়ে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে। ওর চিৎকারে এলাকার লোকজন এসে আমার মেয়েকে উদ্ধার করে এবং ফাঁকে নাইমুর তখন পালিয়ে যায়। আমি অভিযুক্ত পাষণ্ড নাঈমুর রহমানের বিরুদ্ধে বরগুনা থানায় ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করবো। আমি আইনের মাধ্যমে এই কুলঙ্গারের সঠিক বিচার চাই।
বরগুনা থানা সূত্রে জানা গেছে, বরগুনা সদর উপজেলার ৫নং আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের ৩য় শ্রেণিতে পড়ুয়া ৯ বছর বয়সী ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রীকে ইটবাড়িয়া সরকারি প্রাইমারি স্কুলের বাথরুমে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করলে ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী জোরে ডাক চিৎকার দেয়। ভুক্তভোগীর ডাক চিৎকার শুনে স্থানীয় এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। এসময় অভিযুক্ত পাষণ্ড নাইমুর পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা জরুরি কল সেন্টার ৯৯৯ এ কল করে ঘটনার বিষয় বরগুনা থানায় অবহিত করলে সাথে সাথে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় বিকাল ৫ টার সময় ইটবাড়িয়া তুলাতলা থেকে এসআই রেজাউল করিম অভিযুক্ত নাইমুর রহমানকে আটক করে। পরে ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী ও অভিযুক্ত নাইমুর কে বরগুনা থানায় নিয়ে আসে।
অভিযুক্ত নাঈমুর রহমান গত এক মাস আগে ঢাকার নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় ৫ বছরের একা শিশু কন্যাকে ধর্ষণের পরে হত্যা করার অভিযোগে আড়াইহাজার থানায় পাষণ্ড নাঈমুরের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা চলমান আছে বলে নিশ্চিত করেছে বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে. এম তারিকুল ইসলাম।
বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কে.এম তারিকুল ইসলাম বলেন, জরুরি কল সেন্টার ৯৯৯ এর ফোন পেয়ে আমাদের পুলিশ তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে যায় এবং অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত নাঈমুর রহমানকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। অভিযোগের বিষয়ে ধর্ষণ চেষ্টার মামলার প্রস্তুতি চলছে।
তিনি আরও বলেন, অভিযুক্ত নাঈমুর রহমানের বিরুদ্ধে ৫ বছরের এক কন্যা শিশুকে ধর্ষণের পরে হত্যার অভিযোগে ঢাকার আড়াইহাজার থানায় একটি মামলাও রয়েছে। গত এক মাস আগে পাষণ্ড নাঈমুর রহমান ঢাকায় ৫ বছরের একটি কন্যা শিশুকে ধর্ষণ করে হত্যা করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here