বজ্রপাতে ৬৮ জনের মৃত্যু হয়েছে ভারতের তিন প্রদেশে।

0
12

বাংলার রূপ

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

ভারতের উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানে বজ্রপাতে ৬৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।তিনটি প্রদেশে ভারি বর্ষণের মধ্যে রোববার (১১ জুলাই) এই ভয়াবহ বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রদেশ তিনটিতে রোববার সকাল থেকেই ভারি বর্ষণের সঙ্গে বজ্রপাত শুরু হয়। এতে উত্তরপ্রদেশেই ৪১ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে রাজ্যটির প্রয়াগরাজ জেলায়। শুধু এই জেলাটিতেই ১৪ জন নিহত হয়েছে। এ ছাড়া ফিরোজবাদ জেলায় তিনজন, শিকোহাবাদে তিনজন এবং বাকিরা অন্য জেলায় মারা গেছে।
এ ছাড়া রাজ্যটিতে বজ্রপাতে শুধু মানুষ নয়, বৃষ্টির সময় মাঠে ৪২টি ছাগল ও একটি গরুর মৃত্যু হয়েছে।  
মৃত্যুর দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাজস্থান। সেখানে বজ্রপাতে অন্তত ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমকে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ নিশ্চিত করেন।  

এর মধ্যে রাজ্যটির রাজধানীয় জয়পুরে একটি ওয়াচ টাওয়ারে ৪০ মিনিটের ব্যবধানে দুবার বজ্রপাতে ১১ জনের মৃত্যু হয়। বৃষ্টি চলাকালে সেলফি তুলতে ওয়াচ টাওয়ারে উঠেছিলেন ওই ১১ ব্যক্তি। এ ছাড়া কোটা জেলায় চারজন, ঢোলপুরে ৩ জন এবং ঝালওয়ার ও বারান এলাকায় দুজনের মৃত্যু হয়।

জয়পুরের পুলিশ কমিশনার আনন্দ শ্রীভাস্তবা বলেন, এখন পর্যন্ত ১১ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে দুর্ঘটনা ঘটেছে।  যখন বজ্রপাত হয়েছে, তখন সেখানে কয়েক ডজন লোক উপস্থিত ছিলেন। ভয়ে অনেকে পাহাড়ি বনে ঝাঁপ দিয়ে পড়েছেন। পুলিশ ও স্থানীয় নিরাপত্তাকর্মীরা ২৯ জনকে উদ্ধার করেছেন। উদ্ধারকাজ এখনো চলছে।
এসব মৃত্যুর ঘটনায় শোক প্রকাশের পাশাপাশি মৃতদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ বাবদ ৫ লাখ টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌত।
এদিকে বজ্রপাতে এত প্রাণহানির ঘটনায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শোক প্রকাশ করে টুইট করেছেন। এক শোকবার্তায় তিনি বলেন, রাজস্থানের কিছু জায়গায় বজ্রপাতে অনেক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি অনেক ক্ষয়ক্ষতিও হয়েছে। নিহতদের পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।
এ ছাড়া বজ্রপাতে মধ্যপ্রদেশে সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। শেওপুর ও গোয়ালিয়রের দুজন করে এবং অপর তিনজন শিবপুরি, অনুপপুর, বেতুলের বাসিন্দা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here