মগড়া বা সুমাই নামের খরস্রোতা নদীটি আজ শুকনো খালে পরিনত,নজর নাই কারো।

0
45

মোঃলিয়ন সরকার 

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

নদীমাতৃক দেশ আমাদের সোনার বাংলাদেশ। এই কথা গুলো শুনলে এখন মনে হয় কোন রূপ কথার গল্পের কোন একটি অংশ থেকে আমরা বলছি।আসলে না আমাদের বাংলাদেশের বুক চিরেই ছিল অসংখ্য ছোট বড় অনেক খরস্রোতা নদী যা আজ পরিনত হয়েছে ছোট ছোট খাল বা নালায়।আর এর জন্য দিনে দিনে পরিবেশ ভারসাম্য হারাচ্ছে।গুনিজনরা এর দায়ী করছেন বর্তমান সমাজের দূর্নীতিবাজদের।

বাংলাদেশের উত্তর মধ‍্যাঞ্চলে অবস্থিত ময়মনসিংহ বিভাগের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া কয়েকটি নদীর মধ্যে অন‍্যতম একটি খরস্রোতা শাখা নদী হচ্ছে মগরা বা সুমাই নদী।এটি ভারতের মেঘালয় রাজ‍্যের গারো ও তুরা পর্বত থেকে উৎপত্তি হয়ে শেরপুর হয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে আর এরই একটি শাখা নদী মগরা নদী স্থানীয় ভাবে পরিচিত সুমাই নদী নামে।এই নদী দিয়ে ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর,তারাকন্দা,ও গৌরিপুর উপজেলার কিছু অংশের মানুষের একমাত্র পন্যবাহি যোগাযোগ ব‍্যাবস্থা ছিল এই নদী যেটা নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলার শ‍্যামগঞ্জ বাজার হয়ে জারিয়া হয়ে নেত্রকোনা সদরের মধ্য দিয়ে সুনামগঞ্জ জেলায় প্রবেশ করেছিল।কালের বিবর্তনে আজ সেই নদীর বেশিরভাগ অংশের কোনো চিহ্নই নেই কিছু অংশে ছোট খাল বা নালার মত চিহ্ন থাকলেও তা দখলদারদের মুঠোয় ও কোন কোন স্থানে ময়লার ভাগাড়।

আবার কোন কোন স্থানে নদীর ঐতিহ্য হিসবে দেখা যায় দুই একটা ব্রিজ,যেটা দেখে শুকনো মৌসুমে মনে হয় এখানে একটা নদী ছিলো,তবে বর্ষা কালে সেখানে একটু বিলের পানি প্রবাহের জন‍্য একটু সুবিধা হয়।

এ ব‍্যাপারে এক পূর্বধলার শ‍্যামগঞ্জের এক বৃদ্ধ দৈনিক বাংলার রূপকে জানান, নদীটির ইতিহাস প্রায় সকলেই ভুলে গিয়েছে আজ। নতুন প্রজন্ম যারা আছে তাদের কাছে এই শ্যামগঞ্জ সুমাই নদীটি শুধুই ইতিহাস হয়ে যাচ্ছে।তাই প্রশাসনের নিকট আকুল আবেদন, সুমাই নদী রক্ষা করে নদীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনা হোক।উচ্ছেদ করা হোক দখল দারিত‍্য একটু হলেও ফিরে পাক মগরা বা সুমাই নদীর পূর্ব রূপ,রক্ষা হোক পরিবেশ ভারসাম্য এটাই এই অঞ্চলের বেশিরভাগ মানুষের প্রানের দাবী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here