ঢাকার ধামরাইয়ে অবৈধ ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়ে ৫২ লাখ টাকা জরিমানা।।

0
19

মোঃ সিরাজুল ইসলাম

ধামরাই ( ঢাকা)  প্রতিনিধিঃ

ঢাকার ধামরাইয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আজাহার ও রেজাউল করিম রাজার অবৈধ ইটভাটা ও পরিবেশ দূষণের অভিযোগ এনে ১১টি ভাটাকে ৫২ লাখ টাকা জারিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

সোমবার দিনভর ধামরাই উপজেলার সোমভাগ ইউনিয়ন ও কালামপুর ইউনিয়নের ৮টি ইটভাটাকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্র্যাট কাজী তামজীদ আহমেদ। অভিযানে চলাকালে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা জেলার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোসাব্বের হোসেন মো. রাজীব, পরিদর্শক মোছা. জেসমিন আক্তার, পরিদর্শক ফাতেমাতুজ জহুরা, র‌্যাব-৪, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা।

এসময় ধামরাই উপজেলার সোমভাগ  ইউনিয়নের ডাউটিয়া এলাকায় সোমভাগ ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান মো. আজাহার আলীর মেসার্স আমেনা ব্রিকস ও মেসার্স আইরিণ ব্রিকস নামে অবৈধ দুইটি ভাটাকে ২২লাখ টাকা, সেই সাথে ডাউটিয়ার মো. মকুল মিয়ার মেসার্স এ আর এম ব্রিকস ৬লাখ, লাকি ব্রিকস ৩লাখ, মেসার্স হোসেন ব্রিকস ৬লাখ,সুতিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের মোঃ রেজাউল করিম রাজার মেসার্স কালামপুর ব্রিকস ৫লাখ টাকা, কালামপুর এস বি ওয়ান এবং এস বি টু দুই ইটভাটাকে ২লাখ, পদ্মা ব্রিকস ৬লাখ, নুর ব্রিকস ১লাখ, ফারুক ব্রিকস ১লাখ টাকাসহ মোট ১১টি ইটভাটাকে ৫২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। সেই সাথে চেয়ারম্যান আজাহার আলীর একটি ভাটাকে গুড়িয়ে এবং বাকি ভাটাগুলোর কিছু অংশ ভেঙে দেয়া হয়।

অভিযানে শেষে ঢাকা জেলার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোসাব্বের হোসেন মো. রাজীব বলেন, আজ ১১টি ইটভাটায় অভিযান চালানো হয়েছে। এসময় এসব ইটভাটা যাতে চালাতে না পারে সে জন্য ভাটার মূল অংশ ভেঙে দেয়া হয়েছে। আগামীতেও অবৈধ ইটভাটা বন্ধে তাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে ধামরাইয়ে অবৈধ ইটভাটার সংখ্যা প্রায় ২ শতাধিক। সে গুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, একদিনে ব্যবস্থা নেয়া অসম্ভব। তাই ডে বাই ডে আমরা সব গুলো অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

পরিবেশ অধিদপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্র্যাট কাজী তামজীদ আহমেদ বলেন, এসব ইটভাটা পরিবেশ দূষণ ও পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র না থাকায় অবৈধভাবে পরিচালনা করার অপরাধে ১১টি ইটভাটাকে ৫২লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। তবে আমাদের এই অভিযান পর্যায়ক্রমে চলতে থাকবে। পরিবেশ দূষণ করে এমন ইটভাটা বন্ধ করে দেয়া হবে। সে যত বড় ক্ষমতাশালী হোক না কেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here