আশুলিয়া গৌরিপুর, বি- বাংলা এলাকায় রহিম ফার্মেসীর নামে নানা অভিযোগ জনগণের,ভূয়া ডাক্তার আব্দুর রহিম।।

0
52

বাংলার রূপ নিজস্ব প্রতিবেদক।।

দোকানের নাম রহিম ফার্মেসী মালিকের নাম:আব্দুর রহিম,মজিবর মার্কেট,গৌরিপুর, বি বাংলা,আশুলিয়া,সাভার ঢাকা।গৌরিপুর যুব সংগঠন ক্লাবের পাশে এই দোকানটি দীর্ঘ তিন বছর যাবৎ ব্যাবসা করে আসছে কিন্তুু সরকারি বিধি নিষেধ না মেনে সাধারণ জনগণকে, গরীব, মেহনতী, গার্মেন্টস কর্মীদের ঠকিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা সে মানিকগঞ্জ জেলার ঘিওর থানা বানিয়া জুরির এক মধ্যে বিত্ত ঘরের ছেলে আজ তার সাভারের মতো জায়গায় নিজের বাড়ী এই মানুষ ঠকিয়ে ঔষধ ব্যাবসা করে। চিকিৎসার নামে প্রতারনাসহ নানা বিধ অভিযোগ উঠেছে এক ভূয়া ডাক্তার আব্দুর রহিম এর বিরুদ্ধে। তিনি চিকিৎসক না হয়েও নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে প্রতিনিয়ত রোগীদের চিকিৎসাি দিয়ে আসছেন। তথ্য অনুসন্ধানে জানাযায় ঢাকা জেলার অশুলিয়া থানার গৌরিপুর, বি বাংলা এলাকায় মজিবর মার্কেট রহিম ফার্মেসী নামের একটি ওষুধের দোকান খুলে ভূই ফোর কোম্পানীর নানা বিধ নকল ওষুধ দোকানে রেখে বিক্রয় করছে। সরেজমিনে গেলে দেখাযায় স্কয়ার কোম্পানীর ক্যালবো ডি ট্যাবলেট হুবোহু নকল ক্যালবো ডি ট্যাবলেট,নকল সেনসোডাইন পেস্ট, আমেরিকা ভিটামিন মিনারেল, ইন্ডিয়ান মুভ, সরকারি ডিপু ইনজেকশন, সুখী পিল সহ অবৈধ যৌন উত্তেজনার ঔষধ ও বিভিন্ন অবৈধ কোম্পানির শরির মোটা করার সিরাপ বিক্রয় করছে। এছাড়া তার দোকানের অধিকাংশ ওষুধ মেয়াদ উত্তির্ন পাওয়া যায়।সে কোন প্রকার নিয়ম নিতির তোয়াক্কা না করে নিজের ইচ্ছে মত ব‍্যাবহার করেন জেসোকেইন নামক এনেস্থেসিয়ার ইনজেকশন ব‍্যাবহার করেন।তবে এই এনেস্থেসিয়া ইনজেকশনের মেয়াদ গত মার্চ ২০১৯ শেষ হয়ে গেছে।

এলাকাবাসী জানায় ডাঃ আব্দুর রহিম চিকিৎসক না হয়েও নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে রুগী দেখছেন। তার দোকানের কোন লাইসেন্স নেই। তিনি রোগীদের শরীলে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইনজেকশন ও এন্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা দিয়ে থাকেন। এ বিষয় ডাঃ আব্দুর রহিম নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন আমার দোকানের ঔষধ বিক্রির কোন লাইসেন্স নেই তবে লাইসেন্স করার চেষ্টা করছি। নকল ও মেয়াদহীন ওষুধ বিক্রয়ের বিষয় তিনি বলেন ভুল হয়েছে আর কোন দিন করবো না। এ বিষয়ে এলাকাবাসী জানায় ডাঃ আব্দুর রহিম কোন চিকিৎসক না তার ভুল চিকিৎসায় অনেকে ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা না হলে এলাকার জনজীবন হুমকীর মুখে পড়তে পারে। এলাকার মানুষের দাবি অবিলম্বে এই দোকান মালিকের কঠিন বিচারের দাবি করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here