রৌমারীর ধানারচরে ভলিবল খেলাকে কেন্দ্র করে বাড়িতে হামলা

0
9

এলাহি শাহরিয়ার নাজিম

বাংলার রূপ, রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি ঃ

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের ধনারচর গ্রামে দফায় দফায় হামলা মারপিট ও বাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় ধনারচর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সরাফতজামানের ভাই মৃত আঃ খালেকের ছেলে বদিউজ্জান (৪২) আহত হয়। আহত বদিউজ্জামানকে গ্রামবাসি উদ্ধার করে রৌমারী হাসপাতালে ভর্তি করে।
শুক্রবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে গ্রামবাসি সূত্রে জানাযায়,গত ১১ এপ্রিল বিকালে ধনারচর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে ভলিবল খেলাকে কেন্দ্র করে ধনারচর মধ্যপাড়া গ্রামের হান্নান মেম্বারের ছোট ভাই সাহাদৎ হোসেনের ছেলে সবুজের (২৬) সাথে একই গ্রামের সরকার পাড়ার ধলুর ছেলে রাজুর (২২) মারামারির ঘটনা ঘটে।
এঘটনা মিমাংসার লক্ষে ১৬ এপ্রিল সকালে সরকার পাড়া গ্রামের টুলু সরকারের বাড়ির বৈঠকখানায় তার সভাপতিত্বে এক শালিশী বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। শালিশের সিদ্ধান্ত মোতাবেক দোষীদের কোলাকুলি মাধ্যমে মিমাংসা করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ওই গ্রামের সিনিয়র ব্যাক্তি হামিদ মাষ্টারকে এরায় কার্যকর করার দায়িত্ব দেওয়া হয়। এসময় একই গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে শামিম মিয়া (২৫) সভাপতির অনুমতি ছাড়াই উত্তেজিত হয়ে উসকানি মুলক কথা বলতে শুরু করলে আব্দুল খালেকের ছেলে বদিউজ্জামান (৪২) তাকে থামিয়ে দিয়ে বলেন তুমি ছোট ছেলে সভাপতির অনুমতি ছাড়াই এত কথা বল কেন ? একথা বলতেই মকবুলের ছেলে আজিবর (৩২) বদিউজ্জামানকে কিলঘুষি মেরে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। পরে সবাই উত্তেজিত হলে শালিশী বৈইঠক পন্ড হয়ে যায়।
ওই গ্রামের আঃ রহিমের ভাতিজা ফরিদ মিয়া (৩৬) বলেন, ওই ঘটনার জের ধরে ইউনিয়ন যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ধনারচর গ্রামের সবদের ব্যপারির ছেলে আঃ রহিম (৩৬) আজিবরের পক্ষ নিয়ে আজিবরকে ফোন করে বলেন তুই আমার বাড়িতে আয় দেখি তোকে কে কি করে। ফোন পেয়ে আজিবর আঃ রহিম চাচার বাড়িতে আসে। আঃ রহিম চাচার ঘর আর বদিয়া ভাইয়ের ঘর পাশাপাশি হওয়ায় আজিবরকে দেখে তার সাথে বদিয়া ভাইয়ের কথা কাটাকাটি শুরু হয়। ওই সময় যাদুরচর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার আবু সামা, ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারন সম্পাদক সানাউল্লাহ ও একই গ্রামের মতিয়ার রহমান ওই দিক দিয়ে যাচ্ছিলেন। হট্টগল দেখে তারা এগিয়ে গিয়ে বিস্তারিত শুনে আজিবর কে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে দেন। এরই সূত্র ধরে ধনারচর টুক্কু পাড়া থেকে আজিবর গ্রæপ তারাবির নামাজের সময় দলবদ্ধ হয়ে ধনারচর মধ্যপারার বদিউজ্জামানের বাড়িতে এসে হামলা করে তাকে আহত করে। পরে গ্রামবাসি তাকে উদ্ধার করে রৌমারী হাসপাতালে ভর্তি করেন এবং রৌমারী থানায় সাধারণ ডাইরি করা হয়।
সরকার পাড়া গ্রামের আব্দুল কাসেমের ছেলে সাহাবুদ্দিন বলেন, আমি যখন নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাচ্ছিলাম তখন দেখি আজিবরসহ অনেক ক’জন স্কুল মাঠে সংঘবদ্ধ হচ্ছে। আমি বুঝতে পারি নাই ওরা বদিউজ্জামানের বাড়িতে হামলা করবে।
কথা হয় ওই গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে মামুনের সাথে তিনি বলেন, আমি তারাবির নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাচ্ছিলাম এসময় দেখি বদিউজ্জামানকে আজিবর গ্রæপ মারধর করতেছে আমি থামাতে গেলে আমাকেও মারপিট করে এসময় আমার কাছে থাকা একটি মোবাইল ফোন হাড়িয়ে যায়।
একই গ্রামের হজের আলীর ছেলে হামিদুর রহমান বলেন, আমি নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাচ্ছি এসময় চিৎকার চেচামেচি শুনে এগিয়ে যাই গিয়ে দেখি বদিউজ্জামানকে মারতেছে। পরে আমিসহ অনেকে তাদের হাত থেকে বদিউজ্জামানকে উদ্ধার করি। এঘটনার অনেক পরে কামাল সরকার আসলে তার মাধ্যমে বদিউজ্জামানকে রৌমারী হাসপাতালে পাঠিয়ে দেই।
কথা হয় ওই গ্রামের যাদুরচর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি কামাল সরকারের সাথে তিনি বলেন, ঘটনার সময় আমি, উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ আব্দুল্লাহ ভাই ও সরকার পাড়া গ্রামের আবুল কালামের ছেলে মাইদুল ইসলামসহ শৌলমারী ইউনিয়নের বড়াইকান্দি বাজারে একটি সালিশী বৈঠকে ছিলাম। আমাদের গ্রামের সৈয়দ জামাল ভাই আমাকে ফোন করে ঘটনার কথা জানায়। তখন আমি ও মাইদুল দ্রæত ঘটনাস্থলে আসি। এসে বিস্তারিত জানতে পাই এবং আহত বদিউজ্জামান ভাইকে রৌমারী হাসপালে নিয়ে ভর্তি করি। অথচ একটি ফেসবুক পেইজে আমাকে জড়িয়ে মিথ্যা কথা লিখে পোষ্ট করেছে। মুলতঃ ক্লাবের কমিটি অনেক আগেই পুরান কমিটি ভেঙ্গে রেজুলেশনের মাধ্যমে আমাকে সভাপতি করে নতুন কমিটি দিয়েছেন পুরান কমিটি। আমাকে রাজনৈতিক ভাবে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য একটি কুচক্রিমহলের প্ররোচনায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা কথা রটিয়েছে।
এব্যপারে রৌমারী থানার ওসি আবু মো. দিলওয়ার হাসান ইসাম জানান, এঘটনায় বদিউজ্জান বাদি হয়ে আজিবর গ্রপের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডাইরি করার জন্য লিখিত অভিযোগ করেছেন। তদন্তপূর্ব আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here