কোন প্রকার চিকিৎসা সনদ না থাকলেও শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকায় ঔষধ বিক্রেতা ও একজন বড় ডাক্তার।।

0
80

 

মোঃসোহান আহমেদ( সানাউল),

আশুলিয়া,সাভার, ঢাকা।।

 

ঢাকার সাভারের আশুলিয়ায় মোঃ খোকন আলী নামে এক ব্যক্তি, যিনি ডিপ্লোমা ইন মেডিসিন ডিগ্রীধারী দাবি করেন, তবে সাইনবোর্ডে তার নামের আগে লাগিয়েছেন ডাঃ শব্দটি। শব্দটি লাগিয়ে নিজেকে অনেক বড় চিকিৎসক বলে মানুষের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে প্রতারনা করে আসছেন।

 

এই ধরনের অভিযোগের ভিত্তিতে আশুলিয়ার চিত্রশাইল কাঁঠালতলা বাজারে নেহা মেডিসিন সেন্টার  গিয়ে জানা যায়, তিনি নিয়মিত রোগী দেখা এবং রোগীদের বিভিন্ন ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই যেকোনো রোগের চিকিৎসা করছেন।

 

বিষয়টা গনমাধ্যম কর্মীরা অনুসন্ধান করার জন্য ভুয়া চিকিৎসক মোঃ খোকন আলীর নিকট একজন সুস্থ সংবাদ কর্মীকে পাঠান। পরে দেখা যায় রোগীকে তিনি পাঁচ মিনিট ধরে দেখার পরে প্রথমে তার ফী বাবদ দুই শত টাকা নিয়ে নেন।

 

এরপর তিনি বলেন, রোগীর অবস্থা খুবই খারাপ, রোগীকে এই মুহুর্তে তিনটা ইনজেকশন দিতে হবে, তার জন্য প্রতিটা ইনজেকশনের খরচ পড়বে দুই শত টাকা করে।

 

এই পর্যায়ে অনুসন্ধানী টিম এর বাকী সদস্যরা সেখানে গিয়ে হাজির হন এবং ভুয়া চিকিৎসক মোঃ খোকন আলীর কাছে জানতে চান, এই রোগীকে যে আপনি ইনজেকশন দিচ্ছেন, আপনি কি জানেন এই রোগী সুস্থ নাকী অসুস্থ? তবে এমন প্রশ্নের উওর তিনি দিতে পারেন নাই।

 

এসময় তার কাছে আরও জানতে চাওয়া হয়, নামের আগে যে সাইনবোর্ডে ডাক্তার লাগিয়েছেন, ডাক্তার হিসাবে সনদপত্র এবং কোন রেজিস্ট্রেশন আছে কিনা? এক্ষেত্রেও তিনি কোন প্রকার সনদ দেখাতে পারেন নাই তবে  তিনি মুখে মুখে বলছেন মেডিসিন এর উপর সে ডিপ্লোমা করেছেন।

 

এসময় আরও জানা যায়, অনুসন্ধানী টিম এর যাকে রোগী সাজিয়ে পাঠানো হয়েছিলো তাকে, এই ডাক্তার নামধারী ব্যক্তি নিজের নামের সাথে ডাঃ লাগানো পদবী সম্বলিত চিকিৎসা পত্র  লিখে দিয়েছেন এবং এর ফি বাবদ সে দুইশত টাকা অনুসন্ধানকারী রোগীর কাছ থেকে নিয়েছেন।

 

এব্যাপারে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর ডাঃ নাজমুল হুদা মিঠুর কাছে  বিষয়টি জানালে তিনি বলেন, এই ধরণের কাজ কেউ কোনোভাবেই করতে পারেন না। এটা একটি দণ্ডনীয় অপরাধ  অপরাধ, এরকম কোনো অভিযোগ পেলে তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

এ ব্যাপারে মুঠোফোনে বিষয়টি আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ জানান, যে চিকিৎসা পত্র  তিনি প্রদান করেছেন সেটা সংগ্রহ করুন। পরে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে আমাদের জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here