জাতীয় জেল হত্যা দিবসের ‘সাড়ে চার দশক আজ।

0
30

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদক।

 

 ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর, আজকের এই দিনে  ৩ নভেম্বর ১৯৭৫ তার ঘনিষ্ঠ চার সহকর্মী সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে কারাগারে হত্যা করে দেশদ্রোহী ষড়যন্ত্রকারীরা।

 

রাষ্ট্রের হেফাজতে হত্যাকাণ্ডের এই ঘটনাটি ঘটার কারণে আজকের এই দিনটি ‘জেল হত্যা দিবস’ হিসেবে পালিত হয়ে আসছে বাংলাদেশে।

 

দিবসটি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার সকাল ৭ ঘটিকায়  ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

 

তিনি প্রথমে সরকারপ্রধান হিসাবে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে ফুল দেন এবং সেখানে দাঁড়িয়ে কিছু  সময় নীরবতা পালন করেন । পরে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হিসাবে দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

 

পরে চৌদ্দ দলীয় জোটের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিমের নেতৃত্বে অন্যান্য  নেতারা এবং আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন, বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

 

এ সময় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের উপস্থিত, সাংবাদিকদের বলেন, “সবচেয়ে কলঙ্কজনক রক্তাক্ত দুটি ঘটনা। পনেরই অগাস্ট ও তেশরা নভেম্বর একই সূত্রে গাথা, একই ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতা।

 

“বঙ্গবন্ধু হত্যার পর আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার জন্য ষড়যন্ত্রকারীরা  কারা অভ্যান্তরে মুক্তিযুদ্ধের প্রথম সারির চারজন সংগঠককে,আমাদের জাতীয় চার নেতাকে,  নিশংস ভাবে হত্যা করে।

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ আমরা বঙ্গবন্ধু সহ জাতীয় চার নেতার হত্যাকারীদের,অনেকেরই দণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। যাদের দণ্ড কার্যকর হয়নি। যারা বিদেশে পলাতক, তাদেরকে বিদেশ থেকে ফিরিয়ে আনার জন্য জোরালো প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে এবং এই কূটনৈতিক প্রয়াস সামনের দিনগুলোতে অরও বাড়বে।

 

এসময় ৩ নভেম্বরের হত্যাকাণ্ডের  বিষয়ে কমিশন গঠনের অগ্রগতি ব্যাপারে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, “সেটি এখনো সরকারের আলাপ আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে, এখনো কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছায়নি।

তিনি বলেন, “আজকে আমাদের শপথ হবে, শহীদদের স্বপ্ন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন, জাতীয় চার নেতার যে স্বপ্ন, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমরা ও আমাদের প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলব।

 

আজকের এই দিনের কর্মসূচির শুরুতে সকাল ৬টায় বঙ্গবন্ধু ভবন ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ,সারাদেশে সংগঠনের বিভিন্ন কার্যালয়ে,জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়, এবং  কালো পতাকা উত্তোলন করা হয় ।

 

সকাল ৮টায় বনানী কবরস্থানে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ ও এম মনসুর আলী এবং  রাজশাহীতে কামরুজ্জামানের সমাধীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা।

 

বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এম মনসুর আলীর ছেলে ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, “বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতাকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশে যে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে তা হাজার বছরেও কাটিয়ে ওঠার মত নয়। এই রাজনৈতিক শূন্যতা অপূরণীয় ক্ষতি। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে, জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার হয়েছে।

 

তিনি বলেন,এখনো কিছু ষড়যন্ত্রকারীরা দেশবিরোধী শক্তি  রাজনৈতিক শূন্যতা সৃষ্টির অপচেষ্টা করে যাচ্ছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই এই সকল চক্রান্ত মোকাবিলা করে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

 

জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে বিকালে রাজধানীর “কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে” আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হবে ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here