রৌমারীতে ধর্ষনের পর ক্ষমতারবলে গ্রাম ছাড়া করালেন মা-মেয়েকে।

0
45

এলাহী শাহরিয়ার নাজিম
রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি :

কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় এক লম্পট দুকানির প্রতারণার শিকার হয়ে বসত-ভিটা এমনকি গ্রাম ছাড়তে হয়েছে মা-মেয়েকে। অনৈতিক কর্মকান্ড! বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অন্তরঙ্গ মূহুর্তের ছবি মোবাইলে ধারণ করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়া, একাধিক স্বামির ঘর ছাড়ানোরপর বিয়ে করতে বললে সেই অশ্লিল ছবি ফেসবুকে পোষ্ট করে গ্রাম ছাড়া করালেন মা-মেয়েকে। পার্শবর্তী গ্রামে আত্বীয়-স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নিয়ে বিচারের আশায় দারে দারে ঘুরছে ওই মা-মেয়ে। উপজেলার বন্দবের ইউনিয়নে এমন ঘটনা ঘটায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
বুধবার (৮ এপ্রিল) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, একাধিক মেয়ের জীবন কলঙ্কিত করা বাইটকামারি গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে প্রভাবশালি বাছেদ মিয়া (৩২) একই এলাকার আবু হানিফের বিবাহিত মেয়েকে বিয়ের কথা বলে পরকিয়া শুরু করে। বাছেদ মিয়া প্রভাবশালি হওয়ায় ওই এলাকার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানায়, এর আগেও অর্থ এবং বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এমন ঘঁটনা অনেক ঘটিয়েছে।
রৌমারীর বাগুয়ার চরে এক বাড়িতে আশ্রয়ে থাকা ওই ধর্ষিতা জানায়, আমার প্রথম বিয়ে হয় বাইটকামারী গ্রামের বাচ্চু মিয়ার সাথে। সেখানে সংসার চলাকালিন সময়ে বাইটকামারী বাজারে জামা-কাপড় কেনাকাটা করায় একটা ভালো সম্পর্ক হয় তার সাথে। সেই সুযোগে একদিন বিকেলে সুযোগ বুঝে আমার শশুর বাড়িতে গিয়ে আমাকে আচমকা জাপটে ধরে ধর্ষনের চেষ্টা করে বাছেদ। এসময় ঘটঁনাটি আমার শ্বশুরের চোঁখে পরলে বাছেদ আমাকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায় সে। এই সূত্রধরে স্বামী আমাকে তালাক দেয়। কিছুদিন পর আবার আমার বিয়ে হয় রৌমারী সদর ইউনিয়নের বাওয়ার গ্রামের সোনাউল্লাহ মিয়ার ছেলে আজগর আলীর সাথে। আজগর আলী ঢাকায় গার্মেন্টেসে চাকরী করার কারণে বেশী সময় আমাকে বাবার বাড়িতে থাকতে হতো। এমতাবস্তায় বাছেদ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমার সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। আমি তার অসৎ উদ্দেশ্য বুজতে নাপেরে তার প্রেমের ফাঁদে পা দেই। তার পরামর্শ মোতাবেক আমি আমার দ্বীতিয় স্বামিকে তালাক দেই। পরে সে আমাকে বিভিন্ন বাড়িতে নিয়ে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে দৈহিক সম্পর্ক করে এবং মোবাইলে আপত্তিকর ছবি তোলে। পরে আমি বিয়ে করার চাপ দিলে আমাদের ওই মেলামিশার ছবি ফেসবুকে দিতে চায় এবং আমার কাছ থেকে দামি মোবাইল সেটসহ ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। আমি বিভিন্ন সময়ে আমার গহনা বিক্রি করে ৩টি এড্রুয়েট মোবাইল সেট ও ১ লক্ষ ২৫ হাজার টাকা বাছেদকে দেই। এর পরেও বাছেদ আমাকে বিয়ে না করে বিভিন্ন টালবাহানা শুরু করে। এক পর্যায়ে সে আমাকে হুমকি দিয়ে বলে যদি বিয়ের কথা বলিস এবং আমার ইচ্ছেমত ডাকে সারা না দিস তাহলে তোর সাথে তুলা সব আপত্তিকর ছবি ফেসবুকে ছেড়ে দিব বলে আমার মায়ের সামনে দিনেরপর দিন শারিরিক নির্যাতন করতে থাকে এবং ইচ্ছে হলেই ধর্ষন করে যায়। গত ১৭/১৮ দিন আগে আমার শরিরে টাচ্ করতে নিষেধ করলে আপত্তিকর ছবি গুলো ফেসবুকে ছেড়ে দেয়। এঘটনায় গ্রামের মানুষকে দিয়ে আমাকে অপবাদ দেয় এবং আমার দাদাকে এক ঘরে করার হুমকি দেয়। পরে আমার দাদা আমার থাকার ঘরটি ভেঙ্গে দিয়ে আমাকে ও আমার মাকে গ্রাম ছাড়া করে দেয়। এখন আমরা মা মেয়ে যেখানেই আশ্রয় নেই সেখাই বাছেদ লোক পাঠিয়ে বাড়ি ওয়ালাদের হুমকি দেয়।
থানায় যান না কেন ? এক প্রশ্নের জবাবে ওই গৃহ বধু বলেন, থানায় গেলে আমাকে জানে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছে ওই বাছেদ। এখন আমি আর মা কয় দিন এভাবে মানুষের

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here