রূপগঞ্জে গাছে গাছে আমের মুকুল,খুশি চাষিরা।।

0
83
খোরশেদ আলম,
রূপগঞ্জ( নারায়ণগঞ্জ)প্রতিনিধি:
ও মা ফাগুনে তোর আমের বনের ঘ্রাণে পাগল করে’…..বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কথাকে সত্যি প্রমানিত করে ফাগুনে  আসার আগেই রূপগঞ্জে আম গাছগুলোতে মুকুল এসেছে। মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে রূপের নগর রূপগঞ্জে। চলতি পথে পথিক একটু থেমে দেখে নিচ্ছে সোনালী মুকুলের রূপ। আন্দোলিত হচ্ছে হৃদয়।
বাংলার প্রকৃতিতে এখনো বসন্ত আসেনি। মাঘের মাঝামাঝিতেই ফলের রাজার মুকুল ফুটছে গাছে গাছে। নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ উপজেলায় মুকুলে মুকুলে ছেয়ে গেছে আম বাগান। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে পরাগের পাগল করা ঘ্রাণ।
আম বলতে এক সময় উত্তরের চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহীকেই বোঝাতো। কিন্তু বর্তমান চিত্র অনেকটা ভিন্ন। রূপগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে প্রায় সব জাতের আম উৎপাদন হচ্ছে। লাভজনক হওয়ায় প্রতি বছর কৃষি জমিতে বাড়ছে আমের আবাদ।
আবহাওয়াগত ও জাতের কারণেই নির্ধারিত সময়ের প্রায় এক মাস আগেই আমের মুকুল আসতে শুরু করেছে। তবে মাঘের শেষেই প্রতিটি গাছেই পুরোপুরিভাবে মুকুল ফুটতে শুরু করবে। যেসব গাছে আগাম মুকুল আসতে শুরু করেছে তার বাগান মালিকরা পরিচর্যাও শুরু করে দিয়েছেন রীতিমতো।
গাছে গাছে ফুলের সমাহার। রূপগঞ্জে প্রতিটি আম গাছের শাখায় শাখায় নতুন ফুলে বাংলার প্রকৃতিকে এক অপরূপ সাজে সাজিয়েছে। বিশেষ করে গাছে গাছে আমের মুকুল যেন বাংলার প্রকৃতিকে অপরুপ করে তুলেছে। আমের মুকুল আর এর মৌ মৌ গন্ধ পাগল করে সকল বাঙালিকেই।
মৌমাছির দল গুন গুন শব্দে, মনের আনন্দে আহরণ করে মধু। মৌমাছির এ গুন গুন সুরও কেড়ে নেয় অনেক প্রকৃতি প্রেমির মন। ফালগুন না আসতেই বাংলার পত্রহরিৎ অরণ্যে নতুন এ পত্র-কুড়ি দেখা যায়। নতুন ফুলে-ফুলে ভরে ওঠে গাছের শাখা। এ যেন হলুদ আর সবুজের মহামিলন। গাছে গাছে ফুটছে আমের মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে এ মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ।
রূপগঞ্জ উপজেলার ভুলতা গ্রামের সৌখিন আম চাষী সিরাজুল ইসলাম  জানান, ‘প্রায় ১০-১৫ দিন আগে থেকে আম গাছে মুকুল আসা শুরু হয়েছে। কিছু গাছ মুকুলে ছেয়ে গেছে। বেশিরভাগ গাছে মুকুল বের হচ্ছে। মুকুল আসার পর থেকেই গাছের প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করেছি।’
হাটাবো গ্রামের মোঃ কাওছার মিয়া জানান , ‘মুকুল রোগ বালাইয়ের আক্রমন থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী  প্রয়োজনীয় ওষুধ স্প্রে করছি এবং গাছগুলোর গোড়ায় নিয়মিত পানি  দিচ্ছি।’
নগরপাড়া গ্রামের মোঃ মাসুম ভূঁইয়া জানান,‘আমার বাগানে ৩০০ শত আমগাছ রয়েছে প্রায় প্রতিটি গাছেই এবছর মুকুল এসেছে আবহাওয়া ভালো থাকলে ভালো ফলন পাব।
রূপগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কায়ছুন রাহাত হাওলাদার জানান, ‘ রূপগঞ্জে ব্যক্তি উদ্যোগে ছোট্ট ছোট্ট আমবাগান রয়েছে ,  ২টি পৌরসভা,ও ৭টি  ইউনিয়নেই কম-বেশি আমগাছ বা ছোট ছোট বাগান রয়েছে। আমের ভালো ফলনের জন্য আমরা যে কোনো ব্যক্তিকেই পরামর্শ ও সহযোগিতা করতে প্রস্তুত আছি।’ ‘এ সময় বিভিন্ন পোকামাকড় মুকুলের ক্ষতি করে। এ পোকা দমনে বালইনাশক স্প্রে করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here