মুলাদীতে বিএনপির দুই নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের ক্ষোভ।

0
13

আরিফুল হক তারেক
মুলাদী প্রতিনিধিঃ

মুলাদীতে উপজেলা বিএনপির দুই নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছে তৃণমূল নেতাকর্মীরা। গতকাল শুক্রবার মুলাদী বাধের ওপর বিএনপির কার্যালয়ে উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অধ্যাপক শরীয়ত উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জরুরী সভায় নেতাকর্মীরা উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ কবির হোসেন খান ও সদস্য সফিপুর ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জানে আলম দুলাল চৌধুরীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানান। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর পরই উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ কবির হোসেন খান জাতীয় পার্টিতে যোগদান করে পৌর জাতীয় পার্টির আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এবং জানে আলম দুলাল চৌধুরী ওই দলে যোগদান করে সক্রিয় কর্মী হিসেবে কাজ করছেন। নেতাকর্মীরা অভিযোগ করে বলেন অধ্যক্ষ কবির হোসেন খান ও জানে আলম দুলাল চৌধুরী উপজেলা বিএনপির পদ-পদবী কিংবা দল থেকে পদত্যাগ না করেই অন্য দলে যোগদান করেছেন। এমনকি তাদেরকে বহিস্কারের সুপারিশ করে জেলা বিএনপি নের্তৃবৃন্দকে অবহিত করা হয়নি। উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব আঃ ছত্তার খানের বন্ধু ও ঘনিষ্ঠ লোক এবং প্রভাবশালী ব্যবসায়ী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে দীর্ঘ দিনেও কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি বলে নেতাকর্মীদের অভিযোগ রয়েছে। উপজেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক প্রভাষক মনিরুজ্জামান মনির জানান উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ কবির হোসেন খান ও সদস্য জানে আলম দুলাল চৌধুরী বিএনপি থেকে পদত্যাগ না করেই জাতীয় পার্টিতে যোগদান করায় একই সাথে দুই দলে রয়েছে। কিন্তু বিএনপির গঠনতন্ত্র অনুযায়ী একই সাথে বিএনপি ও জাতীয় পার্টির রাজনীতি করা যায় না। তাই অবিলম্বে এই দুই নেতাকে বিএনপি থেকে বহিস্কার করা প্রয়োজন। এছাড়া বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর পরই এই দুই নেতা জাপায় যোগদান করায় সংসদ নির্বাচনে তাদের ভুমিকা নিয়ে যেসকল প্রশ্ন দেখা দিয়েছিলো তা প্রমাণিত হয়েছে। উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি অধ্যাপক শরীয়ত উল্লাহ জানান আমাদের দল থেকে দুই নেতা অন্য দলে যোগদান করার পর উপজেলা বিএনপির সভাপতি সভা-সমাবেশের মাধ্যমে নেতাকর্মীদের অবহিত করেননি কিংবা তাদের বিরুদ্ধে কোনো প্রকার সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেননি। তাই জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে আমরা এই দুই নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছি। কারণ বিএনপির সুদিন ফিরে আসলে এই দুই নেতা উপজেলা বিএনপির সভাপতির হাত ধরে আবার দলের নাম ভাঙ্গিয়ে সুবিধা গ্রহণের চেষ্টা করতে পারে। উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক অ্যাডভোকেট তরিকুল ইসলাম দিপু মোল্লার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ আবিদুর রহমান হুমায়ুন, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর হোসেন কবিরাজ, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আল মামুন, বরিশাল জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী কামাল হোসেন, পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি ও পৌর কাউন্সিলর এনামুল হক ইনু, উপজেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক প্রভাষক মনিরুজ্জামান মনির, বরিশাল জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাধারণ সম্পাদক আবু জাহিদ মোল্লা, পৌর ছাত্রদলের সভাপতি আরিফুর রহমান টিটু, সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ঢালী, উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক জসিম উদ্দীন সিকদার, মশিউর রহমান মাসুদ, কাজী মিজানুর রহমান, খোকন শরীফ, অ্যাড. ইউনুছ আলী রবি, যুবদল নেতা কলিমুল্লাহ, পৌর যুবদলের আহবায়ক আনিসুর রহমান আলাল, যুগ্ম আহবায়ক ও পৌর কাউন্সিলর মিজানুর রহমান হাওলাদার, যুগ্ম আহবায়ক জসিম সিকদার, মনোয়ার হোসেন নিপু চৌধুরী, বরিশাল জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান জীবন, বরিশাল জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ইউনুছ হাওলাদার, ছাত্রদল নেতা শফিকুল ইসলাম শাওন হাওলাদারসহ উপজেলা ও পৌর বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here